Akhi alomgir pussy Free sex video chat with local girl

Posted by / 18-Jul-2020 19:10

Akhi alomgir pussy

সেদিন ও আমাকে অনেকক্ষণ কিস করল। প্রায় পাগলের মত। তারপর যখন ও একটু ঠাণ্ডা হল তখন আমি ওর ঠোঁট থেকে একটু নিচে নামলাম। ধীরে ধীরে ওর গলায়,ঘাড়ে,বুকে কিস করলাম। আমার যতদুর মনে পড়ে আমি কিস করতে করতে ওর নাভিতে এসে থেমে গিয়েছিলাম। ওর চোখ তখন বন্ধ ছিল আর প্রতিটা কিসেই ও শিহরিত হচ্ছিল। এরপর উপরে উঠে ওর দুধগুলো আবার টিপতে থাকলাম। তখন যেন আমি শুনতে পেলাম, ও আমার কানে ফিস ফিস করে বলছে, “Rishat, I love you. I can’t put up with it.”এই প্রথম আমি কিছুটা অসহায় বোধ করছিলাম। কারণ আমার কাছে কনডম ছিল না। আর ওর কাছে থেকে থাকলেও ( যদিও পরে জেনেছিলাম ওর কাছেও কনডম ছিল না) ওর ঐ Climax থেকে তখন ওকে বের করে এনে কনডম কই সেটা জিজ্ঞেস করতে খারাপ লাগছিল । কি করা যায় সেটা ভাবছিলাম। হঠাৎ মাথায় এল ও আমার বাড়া ম্যাসাজ করার জন্য লুব্রেকেটিং অয়েল এনেছিল। সেটা ভাবতেই মাথায় চলে এল ওর কাছে অবশ্যই একটা ডিলডো আছে। না হলে ও লুব্রেকেটিং অয়েল দিয়ে কি করেবে?

সাথে সাথে আমি এটাচড ওয়াশরুমে গেলাম। খুজতে গিয়ে শ্যাম্পু, কন্ডিসনার, পেস্ট, ব্রাস, পারফিউম, বডি স্প্রে, হেয়ার অয়েল, অলিভ অয়েল হেন তেন বহুত কিছুই ছিল কিন্তু শুধু ডিলডোটা পাচ্ছিলাম না। কেন জানি খুব হতাশ লাগছিল। আমি পাগলের মত খুঁজতে লাগলাম। কিন্তু পাচ্ছিলাম না। একটু পর বুঝলাম আমার মাথা গরম হয়ে যাচ্ছে। নিজেকে বোঝালাম মাথা গরম করলে পাওয়া যাবে না। তাই মাথা ঠাণ্ডা করে ভাবতে লাগলাম এমন একটা সেক্স টয় আমি কোথায় রাখতাম?

”আমি হেসে বললাম, “মাল ছাড়ার পর এটা একটু ছোট হয়ে যায়।”ও হাসতে হাসতে বলল, “খুবই মজার জিনিস তো। একটু আগেও আমি দেখলাম প্রায় ছয় ইঞ্চির একটা এত বড় একটা জিনিস। সেটা এখন মাত্র আড়াই ইঞ্চি হয়ে গেল?

We understand why you are blocking ads, but just know it compromises your site experience (features may break or not appear entirely) and prevents us from investing in the Future of Porn.

সেদিন সকালে আমার ঘুম ভেঙ্গেছিল সকাল সাড়ে আটটায়। আমার যতটুকু মনে পড়ে হলের জীবনে আমি কোনদিন একটু শান্তি মত ঘুমাইতে পারি নাই। ন’টার বেশি তো কোন দিনই না। ঐদিন এমনিতেই বাহিরে কি একটা বিষয় নিয়ে পোলাপাইন বেশ হাউকাউ লাগাইছিল। তারপর উপর রুমের দরজাটাও খোলা ছিল। আবার এদিকে ছিল রুমের ছোট ভাইটার অত্যাচার। ও তখন ফার্স্ট ইয়ারে ছিল । যতক্ষণ সে রুমে থাকত ততক্ষণ ঘটঘট করে পড়ত । পুরা রুম ফাটায় ফালাইত। কত বুঝাইছি ওরে, “ভাইয়া, একটু আস্তে আস্তে পড়।” কিন্তু কার কথা কে শুনে। ওর নাকি জোরে জোরে না পড়লে পড়া মুখস্ত হয় না। আরে ভাই আমরা কি পড়ি নাই?

–ঠিক আছে।এই ছেলেটা সব কিছুতেই অনেক চেষ্টা করত। অনেক পরিশ্রম করত। কিন্তু চিন্তা করত জটিল করে। যেটার জন্য ও অনেক সহজ জিনিসও বুঝত না। আমি জানতাম ও আঁকতে পারবে না। এই জন্যই ওরে এটা আঁকতে দিয়েছিলাম। আমার যেই লাভ টা হল সেটা হল ঘটঘটানি বন্ধ। আমি দেখলাম ও কম্পাস আর স্কেল নিয়ে বসতেছে। আমি তো খুশি।শাওন এমনিতে ভালো ছেলে। সারাদিন পড়াশুনায় ডুবে থাকত। অন্যসব ছেলেরা যা করত ও ঐগুলার কিছুই করত না। ফার্স্টইয়ারের ছেলে গুলা অনেক রক্ত গরম টাইপের হয়। নতুন ভার্সিটি উঠছে,তার উপর ঢাকা শহরের বাতাস। সব কিছু মিলায়া একেবারে রঙিন দুনিয়া। আমাগো হলেই কয়েকটা পোলা ছিল যারা মদ,আফিম,হিরোইন,গাজ� �, আর মাইয়া লইয়া সারাদিন টাল হইয়া থাকত। আমি জানতাম প্রতিটা রুমেই একটা দুটো এরকম থাকেই। আমি যখন প্রথম যাই হলে থাকতে,তখন যেই রুমে ছিলাম সেটাতে দুটো আর্কিটেক্ট ভাইয়া ছিল। দেখতাম সারাদিন টাল হয়ে থাকত। আমারেও কয়েকদিন মদ নিতে কইছিল। নিছিলামও,কিন্তু খাইতে পারি নাই। এত জঘন্য জিনিস মনে হয় আমি এর আগে টেস্ট করি নাই। মদের থেকে মনে হয় মুতও বেশি মজা। আর সিগারেটের গন্ধই সহ্য করতে পারি না,গাঞ্জা তো দূরে থাক। কয়েকদিন অবশ্য পর্ণো মুভি দেখার চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু সেটাও ভালো লাগে নাই। সব গুলা একই রকম। কোন বৈচিত্র নাই। যখন দেখতাম তখন আমার এক্সাইটমেন্টই হইত না। তাই ঐটাও বেশিদিন করতে পারি নাই। হলের সবাই জানত আমাগো রুমে কোন রকমের উল্টাপাল্টা কাজ হইত না। এইজন্য একটা সুন্দর নামও ছিল আমাদের রুমটার। সেটা হল পবিত্র রুম। বুয়েটের জেরুজালেম (পবিত্র নগরী,যারা মুসলমান তারা হয়ত জেনে থাকবেন)। আর আমাগোরে মানে আমারে আর শাওন রে কইত পূত,পবিত্র মানুষ অথবা শিশু। পরে অবশ্য শিশু নামটাই বেশ প্রচলিত ছিল। তবে আমি যে ড্রিংক্স করতাম না তা একেবারে ঠিক না। আমার ওয়াইনটা খুব প্রিয়। আইস ওয়াইনটা বেশি লাইক করি। এখন সপ্তাহে অন্তত একবার এটা টেস্ট করি। আগে মাসে একবারও পাইতাম না। ব্রান্ডের মাঝে লাইক করতাম এলসিনো আর রেড সেভেন। অদ্ভুত জিনিস দুইটা। তবে প্রচুর দাম ছিল তখন। একটা এলসিনো’র বোটল ছিল ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা। যেটা ছিল আমার সারা মাসের খরচ। আর পোলাপাইনরাও আনত না। কইত নেশা নাকি জমে না। অবশ্য মাঝে মধ্যে স্যারের বাসায় গেলে খাওয়া যাইত।একটু পর দেখলাম আমার মোবাইলের লাইটটা একবার জ্বলতাছে একবার নিভতাছে। হাতে নিয়ে দেখি সপ্নার ফোন। সপ্না এখন আমার বউ কিন্তু তখন আমার গার্লফ্রেন্ড ছিল। ও তখন ডি.এম.সি.

তে পড়ত। সেকেন্ড ইয়ারে। পরে এফ.সি.পি.এস’ও শেষ করছে। এখন সুন্দর ঘরে বসে আছে। সে নাকি টায়ার্ড হয়ে গেছে। ডাক্তারি করতে পেইন লাগে। এই মেয়েটাকে যখন আমি প্রথম দেখেছিলাম তখনই আমার মনে হয়েছিল মেয়েটার মাথায় কিছু না কিছু ছিট তো আছেই। আর এখনও জীবনের প্রতিটা ডিসিশনে সেটার পরিচয় খুব ভাল ভাবেই দিচ্ছে। তবুও কেন জানি মেয়েটাকে ভাল লাগে। হয়ত মানুষ ভালো এই জন্য।ফোন রিসিভ করতেই সেই জ্বালাময়ী কণ্ঠ কানে এল।–হ্যালো,রিশাত,কেমন আছো? –আমি ভীষণ ভালো আছি। তার উপর তোমার জন্য একটা, না না, অনেকগুলা সারপ্রাইজ আছে, তাই আরও বেশি বেশি ভালো।–কি সারপ্রাইজ? –না,ভার্সিটি বন্ধ হয়ে গেছে। আগামী সাত দিন বন্ধ থাকবে।–“তাই নাকি?

Akhi alomgir pussy-57Akhi alomgir pussy-41Akhi alomgir pussy-90

”–আমি আগেই তো কইলাম It’s up to you ।ও উঠে বলল, “উঠে বস।” আমি উঠে বসলাম। ঠিক বসলাম না,বাম হাতটা উপরে রেখে ডানকনুই এর উপর ভর দিয়ে আধ শোয়া হয়ে রইলাম। ও উঠে গিয়ে বিছানার ডান পাশে গিয়ে ডিম লাইটটার ঠিক নিচে দাঁড়ালো। হালকা গোলাপি আলো এসে ওর উপর পড়ছিলো। আর ওর চুলে সেটা যেন রিফ্লেক্ট করছিল। ওকে তখন সত্যিকারের সুন্দরী মনে হচ্ছিল আমার কাছে। আমার দিকে তাকিয়ে একটু হেসে মৃদু স্বরে বলল, “তোমার কাছে নারীর সংজ্ঞা কি আমি সেটা জানি না। তবে যতটুকু তোমাকে চিনেছি তাতে তোমাকে অনেক ভালো একটা মানুষ মনে হয়েছে। প্রতিটা ছেলের কাছেই ‘মেয়ে’ নামক শব্দটা একটা ফ্যন্টাসি থাকে। তোমার কাছেও এটা ফ্যন্টাসি আমি জানি। অনেক ছেলেরাই মেয়েদেরকে ভুল বুঝে। তোমার ধারণা কি সেটা আমি জানি না, আজকে আমি তোমার কাছে শুধুই আমি না, আমি তোমার কাছে পুরো নারী জাতিকে রিপ্রেজেন্ট করছি। ধরে নাও এটা আমার প্রতি তোমার ভালবাসার একটা গিফট ।”এরপর ও আস্তে করে পাঞ্চক্লিপ্টা খুলে ফেলল। ওর চুল গুলা পিঠ পর্যন্ত নেমে গেল। আমি একটাও কথা বলছিলাম না। শুধুই দেখছিলাম । ধীরে ধীরে ও টি-শার্টটা উপরে তুলতে লাগলো। সুন্দর একটা ফর্সা স্লিম পেট আমার চোখের সামনে ফুটে উঠল। আস্তে আস্তে ও টি-শার্ট খুলে ফেলল । দেখলাম ও টি-শার্টটার সাথে ম্যাচ করে ব্রা পড়েছিল। মেরুন কালারের টিশার্টের সাথে মেরুন কালারের ব্রা। খুব সুন্দর মানিয়েছিল। আমি অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে রইলাম। একটু পর ব্রা টাও খুলে ফেলল। ব্রা খোলার সাথে সাথে ওর দুধ গুলো বেরিয়ে এল। বেশি বড়ও ছিল না আবার ছোটও না। ওর শরীরের সাথে ফিট ছিল। খানিক বাদে ও ট্রাউজারটাও খুলে ফেলল। ভেতরে আবার ম্যাচ করে প্যান্টিও পড়েছিল। কিছুক্ষণ পর ও সেটাও খুলে ফেলল। পুরো নগ্ন অবস্থায় ওকে অন্যরকম সুন্দর লাগছিল যেন স্বর্গের এক অপ্সরী । আমি সত্যিকারের বিমোহিত হওয়ার অনুভূতিটা অনুভব করছিলাম তখন। আমার কাছে মনে হল আমার পুরো জগৎটা ওর সৌন্দর্যের কাছে এসে থমকে দাড়িয়েছে।ও হাতদুটোকে কোমড়ে রেখে,মাথাটাকে একটু কাত করল একই সাথে ডান পায়ের উপর ভর দিয়ে,শরীরটাকে একটু বাঁকিয়ে দাঁড়ালো । তারপর আমার দিকে হাসিহাসি মুখে তাকিয়ে বলল, “দেখতে কেমন আমি?

One thought on “Akhi alomgir pussy”